Breaking News

উপার্জন করার পরও টাকা সঞ্চয় করতে পারছেন না? শিখুন টাকা সঞ্চয় করার দারুন কৌশল

আচ্ছা আপনার সাথে কি এটা কখনো হয়েছে? যে মাসের শেষের দিকে গিয়ে মনে হয়, ‘মাসটা যদি একটু তাড়াতাড়ি শেষ হতো!’ হ্যাঁ আমাদের সকলেরই সাথেই কোনো না কোনো সময়ে এরকম ঘটনা একবার না একবার ঘটছে। তবে আজকের প্রতিবেদনটি পড়ার পর আশা করছি এমনটা আর কখনো হবে না। ফলে আজকে আমাদের প্রতিবেদনটি মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন।

বন্ধুরা আমাদের আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটিতে আপনাদের সকলকে জানাই স্বাগত। আজকে আমরা যে বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে চলেছি তা ইতিপূর্বেই আপনি জানতে পেরেছেন। তো প্রতিবেদনটি বেশি লম্বা না করে চলুন শুরু করা যাক আজকের এই প্রতিবেদন-

প্রতিযোগিতার এই বাজারে একটু ভালো ভাবে বাঁচতে চাইলে পর্যাপ্ত অর্থ-বিত্তের বিকল্প নেই। কিন্তু চাকরি বা ছোটখাটো ব্যবসা করে বেশি আয় সম্ভব নয়। তবে আজকে আমরা এই প্রতিবেদন থেকে পয়সা সঞ্চয়ের এমন কিছু টিপস দেখে নেব। যেগুলো ফলো করলে খুব সহজেই আমরা সঞ্চয় করতে পারবো। তাহলে চলুন দেখেনিই সেই টিপস গুলি-

১. উপার্জনের থেকে খরচ কম রাখুন: অনেকসময় আমরা উপার্জনের থেকে বেশি খরচ করে ফেলি। তবে এটা মোটেই করা যাবে না। আপনার মাসিক উপার্জনের একটি তালিকা করুন এবং পাশাপাশি আপনার খরচেরও একটি তালিকা করুন। যদি প্রথমটি থেকে দ্বিতীয়টি বেশি হয় তাহলে আপনার খরচের তালিকা থেকে কিছু বিষয় বাদ দিতে হবে। যতদিন না আপনার দ্বিতীয় তালিকাটি প্রথম তালিকা থেকে কম হচ্ছে ততদিন আপনার কোন কোন কাজ বা অভ্যাসগুলো ত্যাগ করা যায় তা আপনাকেই নির্ধারণ করতে হবে, যেমন- কর্মক্ষেত্র কাছাকাছি হলে যানবাহনের পরিবর্তে হেঁটে যাওয়া আসা করুন, সকালের কফি খাওয়ার অভ্যাসটি বাদ দিতে পারেন ইত্যাদি।

২. অল্প অল্প করে ইনভেস্ট: বেশির ভাগ মানুষ ইনভেস্ট করতে ভয় পায়। কিন্তু ব্যাঙ্কে টাকা রাখা মানেই যে তা সঠিক সঞ্চয়ের উপায় তা সব সময় নয়। তার থেকে ভেবেচিন্তে অন্য জায়গাতেও ইনভেস্ট করতে পারেন, যার ফলে পরবর্তী সময়ে লাভবান হবেন আপনি। তাই বেশি বড় বড় ইনভেস্ট না করে প্রথমে ছোট খাটো ইনভেস্ট থেকে শুরু করুন।

৩. অনলাইন শপিং কম করুন: বর্তমান সময়ে আমরা দোকানে গিয়ে কিছু কেনার থেকে ঘরে বসেই কিনতে বেশি পছন্দ করি। তবে এই অনলাইনে কেনাকাটার চক্করে কখন যে আপনার পকেট থেকে টাকা বেরিয়ে যাবে তা আপনি বুঝতেই পারবেন না। প্রয়োজনীয় জিনিস বাদে অন্য কিছু কেনার হলে তা সঙ্গে সঙ্গে অর্ডার না করে ‘শপিং কার্ট’-এ রেখে দিন। কিছুদিন কেটে যাওয়ার পরে আপনি হয়তো ভুলেই যাবেন সেই বস্তুটি কেনার কথা।

৪. কার্ড কম ব্যাবহার করুন: বর্তমান সময়ে আমরা ক্যাশ এ লেনদেন প্রায় ভুলেই গেছি। এখন সকলেই অনলাইন বা কার্ডই বেশি ব্যাবহার করে থাকি। খরচ কমাতে আমাদের কার্ডের ব্যাবহার কমাতে হবে। আর কার্ড যদি ব্যবহারই করতে হয় তবে রোজ কিছু কিছু করে টাকা তোলা বন্ধ করুন। এভাবে তুললে দেখবেন অ্যাকাউন্ট খুব তাড়াতাড়ি খালি হয়ে যাচ্ছে। তার থেকে ভালো হয় যদি শুরুতেই একটা প্ল্যান করে একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা তুলে নেওয়া যায়। সেটা হতে পারে সাপ্তাহিক, বা মাসে দু’বার। কিন্তু রোজ টাকা তোলা কিছু কিছু করে বন্ধ করুন।

৫.বাইরের খাবার কে না বলুন: আমরা অনেকেই আছি যারা বাইরের খাবার খেতে বেশ পছন্দ করি। কাজের জন্য রোজ বাইরে বেরোতে হয়। আর কাজের ফাঁকে দুপুরে বাইরেই লাঞ্চ সেরে নেওয়া- এতো প্রায় সব মানুষেরই এক ব্যাপার। কিন্তু একটু বাইরের খাওয়া বন্ধ করুন আর ঘর থেকে খাবার নিয়ে যান পারলে। দেখবেন টাকা কি সুন্দর জমছে।

৬. চা-কফি কম করুন: কম বেশি আমরা সকলেই চা বা কফি খেতে ভালোবাসি। তবে একটা জিনিস কক্ষ করলে দেখবেন আপনি অনেকটা টাকা চা বা কফি খেয়েই উড়িয়ে দিচ্ছেন। আর ওই পরিমাণে চা বা কফি খাওয়াও তো ঠিক না। অনেকে দিনে ছয়-সাতবার চা খান। রোজের হিসেবে টাকাটা চোখে না লাগলেও মাসের শেষে অঙ্কটা দেখলেই বুঝবেন এতটা না খেলেই হত।

Check Also

বিদায় নিতে চলেছে বৃষ্টি ,শুভেচ্ছাবার্তা আবহাওয়া দপ্তরের

আরও একবার দুর্যোগের আশঙ্কা। জোড়া নিম্নচাপ পরিণত হতে পারে সাইক্লোনে। রবিবার থেকে বৃষ্টি শুরু। চলবে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *