Breaking News

বছরের পর বছর পরিশ্রমের সফল, চলচ্চিত্র উৎসবে সম্মানিত হয়েন অভিনেত্রী হেমা মিলিনী

আমরা এক কথায় বিনোদন বলতে বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়াকে বুঝি। বর্তমান এই আধুনিক যুগের শিখরে দাড়িয়ে সোশ্যাল মিডিয়া আমাদের কাছে বিনোদনের এক আলাদাই মানে হয়ে দাড়িয়েছে। শুধু বিনোদন না মানুষজন তার প্রতিভা এই সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে সকলের সামনে তুলে ধরে রাতারাতি স্টার হতে পারে।

এই সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই আমরা রানু মন্ডল, বিপাশা দাস ও চাঁদমনি হেমব্রমের মতো সঙ্গীত শিল্পীদের আমাদের মাঝে পেয়েছি। এছাড়া রানু মন্ডল এই সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে জনপ্রিয় হবার পর তার বর্তমানে একটি বায়োপিকও তৈরি হচ্ছে।

এছাড়াও বিভিন্ন প্রাকৃতিক দূর্যোগ যেমন – বন্যা, ভারী বৃষ্টিপাত এই সকল আমরা এই সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই নিমিষের মধ্যে জেনে যেতে পারি। এক কথায় বলতে গেলে সোশ্যাল মিডিয়ার অবদান আমাদের জীবনে অনস্বীকার্য।

আজ আমরা হেমা মালিনীকে নিয়ে আলোচনা করবো। সম্প্রতি পেরিয়েছেন তিয়াত্তরটি বসন্ত। এখনও অনেকের মনেই তিনি ‘ড্রিমগার্ল’। একসময় বলিউডের মাটিতে শুনতে হয়েছিল, তিনি নাকি স্টার মেটিরিয়াল নন। অথচ সেই হেমা মালিনীকে ভারতের বাহান্ন তম আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে সম্মানিত করা হল ‘ইন্ডিয়ান ফিল্ম পার্সোনালিটি অফ দ্য ইয়ার ২০২১’ সম্মানে।

২০ শে নভেম্বর, শনিবার থেকে গোয়ায় শুরু হয়েছে ভারতের বাহান্ন তম আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব, সংক্ষেপে যার নাম IFFI। IFFI-এর মঞ্চে ‘ইন্ডিয়ান ফিল্ম পার্সোনালিটি অফ দ্য ইয়ার’ সম্মানে ভূষিত হয়ে হেমা আপ্লুত।

তিনি জানিয়েছেন, বছরের পর বছর ধরে তাঁর করা পরিশ্রমের ফসল হল এই সম্মান। সাংসদ হিসাবেও তিনি মথুরার জন্য কাজ করেছেন বলে জানালেন হেমা। তাঁর মতে, একজন নৃত্যশিল্পী, অভিনেত্রী ও সাংসদ হিসাবে তিনি সাধারণ মানুষের মনে নিজের স্থান তৈরি করতে পেরেছেন।

এদিন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুরের হাত থেকে এই সম্মান গ্রহণ করেন হেমা। প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে সিনেমার দর্শকদের মনোরঞ্জন করার জন্য হেমাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন অনুরাগ।হেমা ইন্সটাগ্রামে অনুরাগীদের সঙ্গে এই সুখবর শেয়ার করেছেন।

বৃহস্পতিবার অনুরাগ ঠাকুর এক সাংবাদিক বৈঠকে জানিয়েছিলেন, চলতি বছর গোয়ায় আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে ‘ইন্ডিয়ান ফিল্ম পার্সোনালিটি অফ দ্য ইয়ার ২০২১’ সম্মানে ভূষিত হতে চলেছেন হেমা মালিনী ও সিবিএফসি চেয়ারপার্সন প্রসূন যোশী।

হেমার অনুরাগীরাও তাঁকে অনেক শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। ১৯৬৮ সালে রাজ কাপুরের বিপরীতে ‘স্বপ্নো কা সওদাগর’ ফিল্মে হেমার বলিউড ডেবিউ ঘটে। পরবর্তীকালে দেব আনন্দের বিপরীতে হেমা অভিনীত ফিল্ম ‘জনি মেরা নাম’

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Ministry of I & B (@mib_india)

ও ধর্মেন্দ্রর বিপরীতে ‘তুম হাসিন ম‍্যায় জওয়ান’, ‘ড্রিমগার্ল’ সহ একাধিক ফিল্ম সুপারহিট হয়েছিল। অভিনয় জীবনের দ্বিতীয় ইনিংসের শুরু থেকেও হেমা যথেষ্ট সফল। অমিতাভ বচ্চনের বিপরীতে ‘বাগবান’ ফিল্মে তাঁর অভিনয় সকলের খুবই ভালো লেগেছিল।

Check Also

কলকাতা স্টেশনে এক্কেবারে সাধারণ পোশাকে হাজির হলেন শাহরুখ খান, ছবি দেখে হুলুস্থূল নেটদুনিয়ায়

বর্তমানে বিনোদের আরেক নাম সোশ্যাল মিডিয়া। সোশ্যাল মিডিয়াকে আমরা আরো দুটি নামে চিনি যথা নেট …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *